Cart

Best Seller

মাটি ও মানুষের কবি জসীমউদ্‌দীন

নাসির আলী মামুন

Availability: In stock

৳ 1,500.00 ৳ 1,200.00

নকশী কাথার মাঠের কবি দেশের পুরাতন রত্ন ভাণ্ডারকে নূতনভাবে উজ্জ্বল করিয়েছেন, সঙ্গে সঙ্গে অনাগত রাজ্যের বার্তা বহিয়া আনিয়াছেন। রাখালী নামক কাব্যে ইহার প্রতিভার যে পরিচয় পাইয়াছিলাম, নকশী কাথার মাঠ এ তাহার পূর্ণ বিকাশ দেখিতে পাইতেছি। বহু দিন হইল শরৎচন্দ্রের বিশ্ববিশ্রুত প্রতিভার পরিচয় পাইয়া আমি ভারতবর্ষে তাহার প্রতি অভিনন্দন জানাইয়াছিলাম, আজ নকশী কাথার মাঠ এর কবিকেও আমি কিঞ্চিৎ দ্বিধার সহিত সম্বর্দ্ধনা জানাইতেছি। বাঙ্গলা সাহিত্যে কাব্যের পাঠ একরূপ উঠিয়া গিয়াছে। কণিকাতে রবীন্দ্রনাথ লিখিয়াছিলেন একটা মহাকাব্য রচনার তাহার সাধ ছিল, কিন্ত তাহার মর্ম্মের কথা শত সুরে বাজিয়া উঠিল এবং মহাকাব্যের স্থান গীতিকবিতা অধিকার করিয়া বসিল। কবি হয়ত ইহা পরিহাস করিয়াই বলিয়াছিলেন, কিন্ত কবির এই উক্তির পর বাঙ্গলার উদীয়মান কবিরা কবিতায় উপাখ্যান রচনা ছাড়িয়ে দিলেন। রবীন্দ্রনাথের কথা ও কাহিনীর ধরনে মাঝে মাঝে ছোট ছোট কাব্যোপখ্যান পাওয়া যায় সত্য, কিন্ত অধুনা কাব্যের বাজার বড় মন্দা। জসীম উদ্দীনের এই বইখানি ছোট হইলেও ইহা একখানি কাব্য। ইহার উপাদান বাঙ্গলীর চিরাভ্যস্ত, গীতিকবিতার কতকগুলি সুর ও ছন্দ, কিন্ত নানা সুর একত্র করিয়া একটা বড় রাগিণী সৃষ্টি করার শিল্পশক্তি ইহার আছে।

Quantity :
Compare

১৯৭২ সালে নাসির আলী মামুন বাংলাদেশে পোরট্রেট ফটোগ্রাফির সূচনা করেন। আগে শিল্পকলার অভিজাত এলাকায় আলোকচিত্রের প্রবেশাধিকার ছিল না। ওয়াল্টার বেনজামিনরাই প্রথম আলোকচিত্রকে একটি স্বতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক শিল্পকলা হিসেবে চিহ্নিত করেন। মামুন-এর আলোকচিত্র শুধু শিল্পকলাই নয়, সম্পূর্ণ গণমুখী। তাঁর ‘ঘর নাই’ শিরোনামের চিত্রগত সাক্ষাৎকারগুলোই এর প্রমাণ। আমাদের কালের শ্রেষ্ঠ মানুষেরা তাঁর ক্যামেরায় বন্দি হয়ে আছে। তাদের বিভিন্ন সময়ের মুহূর্তগুলো তিনি অত্যন্ত পারদর্শিতার সঙ্গে ধরে রেখেছেন আলোকচিত্রে এবং তাঁর তোলা বিশিষ্টজনদের স্থিরচিত্রে আলো-

আঁধারের ঐশ্বরিক স্পর্শ তাঁকে আন্তর্জাতিক মর্যাদা এনে দিয়েছে। মামুনের ক্যামেরায় খ্যাতিমান ব্যক্তিত্বদের এমন সব চরিত্র ও মুহূর্ত ধরা আছে যা এখন আমাদের সাংস্কৃতিক ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। প্রকাশিত গ্রন্থ ১১টি। দেশে ও বিদেশে একক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর সংখ্যা ৫৩টি। ‘ফটোজিয়াম’ নামে ফটোগ্রাফির একটি জাদুঘর প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছেন। একাধিকবার ভ্রমণ করেছেন ইউরোপ আমেরিকার বহু দেশ। আলোকচিত্রে ধারণ করেছেন সেইসব দেশের অনেক বরেণ্য ব্যক্তিকে। ১৯৫৩ সালের ১ জুলাই পুরনো ঢাকায় নাসির আলী মামুনের জন্ম।

নকশী কাথার মাঠের কবি দেশের পুরাতন রত্ন ভাণ্ডারকে নূতনভাবে উজ্জ্বল করিয়েছেন, সঙ্গে সঙ্গে অনাগত রাজ্যের বার্তা বহিয়া আনিয়াছেন। রাখালী নামক কাব্যে ইহার প্রতিভার যে পরিচয় পাইয়াছিলাম, নকশী কাথার মাঠ এ তাহার পূর্ণ বিকাশ দেখিতে পাইতেছি। বহু দিন হইল শরৎচন্দ্রের বিশ্ববিশ্রুত প্রতিভার পরিচয় পাইয়া আমি ভারতবর্ষে তাহার প্রতি অভিনন্দন জানাইয়াছিলাম, আজ নকশী কাথার মাঠ এর কবিকেও আমি কিঞ্চিৎ দ্বিধার সহিত সম্বর্দ্ধনা জানাইতেছি। বাঙ্গলা সাহিত্যে কাব্যের পাঠ একরূপ উঠিয়া গিয়াছে। কণিকাতে রবীন্দ্রনাথ লিখিয়াছিলেন একটা মহাকাব্য রচনার তাহার সাধ ছিল, কিন্ত তাহার মর্ম্মের কথা শত সুরে বাজিয়া উঠিল এবং মহাকাব্যের স্থান গীতিকবিতা অধিকার করিয়া বসিল। কবি হয়ত ইহা পরিহাস করিয়াই বলিয়াছিলেন, কিন্ত কবির এই উক্তির পর বাঙ্গলার উদীয়মান কবিরা কবিতায় উপাখ্যান রচনা ছাড়িয়ে দিলেন। রবীন্দ্রনাথের কথা ও কাহিনীর ধরনে মাঝে মাঝে ছোট ছোট কাব্যোপখ্যান পাওয়া যায় সত্য, কিন্ত অধুনা কাব্যের বাজার বড় মন্দা। জসীম উদ্দীনের এই বইখানি ছোট হইলেও ইহা একখানি কাব্য। ইহার উপাদান বাঙ্গলীর চিরাভ্যস্ত, গীতিকবিতার কতকগুলি সুর ও ছন্দ, কিন্ত নানা সুর একত্র করিয়া একটা বড় রাগিণী সৃষ্টি করার শিল্পশক্তি ইহার আছে।

ISBN-13:

978-984-8875-47-6

Publisher:

Adarsha

Pages:

896

Publication Year:

2013

Dimensions:

8.5×5.5×2.5inch

Language:

Bengali

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “মাটি ও মানুষের কবি জসীমউদ্‌দীন”

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading...